জবাকে বিয়ে করেছেন নোবেল? যা বলছে কলকাতার গণমাধ্যম

কাউকে না জানিয়ে ‘জবা বউদি’ বিয়েটা করেই ফেলল, এমনই কথাবার্তা চলছে নেটমাধ্যমে। জানা গিয়েছে, ‘কে আপন কে পর’ ধা’রাবাহিকের জবার সঙ্গে বিয়ে করে ফেললেন ‘সা রে গা মা পা’ খ্যাত নোবেলম্যান। সম্প্রতি তেমনই একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেটে।

বিতর্কিত মন্তব্য করে একের পর এক আলোচনায় এসেছেন সংগীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেল। এবার আরেক কারণে তিনি আলোচনায় এলেন। সোশ্যাল প্ল্যাটফরমে অনেকে বলছেন, ভারতীয় ধা’রাবাহিক ‘কে আপন কে পর’-এর জবার সঙ্গে বিয়ে করে ফেলেছেন ‘সা রে গা মা পা’খ্যাত নোবেল।

সম্প্রতি ইন্টারনেটে তাদের তেমনই একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। তাহলে সত্যিই কি তারা বিয়ে করে ফেলেছেন? এ বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে আধুনিক প্রযুক্তি দ্বারা তারকাদের ছবি কা’টাছেঁড়া করা নতুন ঘটনা নয়। নোবেলের এই ঘটনা তেমনি একটি। তার এক বছর আগের পুরনো ছবি এনে একজন এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন।

ইনস্টাগ্রামে ২০২০ সালে নিজের বোনের সঙ্গে একটি ছবি দেন নোবে ২০২০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ইনস্টাগ্রামে নিজের বোনের সঙ্গে একটি ছবি দেন নোবেল। ছবিতে দেখা যায়, নোবেল ও তার বোন একটি ফুলের মালা গলায় দিয়ে আছেন।

প্রযুক্তি ব্যবহার করে সেই ছবিতে নোবেলের বোনের মুখে ‘কে আপন কে পর’ ধা’রাবাহিকের অ’ভিনেত্রী পল্লবীর মুখ বসিয়ে দিয়েছেন ওই ব্যক্তি। তারপর সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে তিনি লেখেন, ‘কাউকে না জানিয়ে জবা বউদি বিয়েটা করেই ফেলল।’

যে ছবি থেকে বোনের মুখ কে’টে অন্য ছবি তৈরি হলো, সেই ছবি নিয়ে আগেই নেটমাধ্যমে কটূক্তির শি’কার হয়েছিলেন নোবেল। মেয়েটিকে নিজের বোন হিসেবে পরিচয় দেওয়ার পরেও তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

পাশাপাশি জবা চরিত্রটিতে অ’ভিনয়ের জন্য ‘পল্লবী শর্মা’-কে আগেও বহুবার কটাক্ষ করা হয়েছে নেটপাড়ায়। কখনো ধা’রাবাহিকে কাঁচি দিয়ে বোমের তার কা’টার জন্য আবার কখনো আগুনের ওপর দিয়ে হেঁটে আগুন নেভানোর জন্য। এবারে দুজনে এক ছবিতে ব’ন্দি হয়ে কটাক্ষের শি’কার হলেন।

এ নিয়ে একজন মন্তব্য করেছেন, ‘আহা রে, শেষ পর্যন্ত মানসিক রোগী সাম’লানোর দায়িত্ব নিয়েছেন আমা’দের প্রিয় জবা বউদি।’ আবার একজন লিখেছেন, ‘বিগত ১০ বছর ধরে স্টার জলসায় যা যা কীর্তি দেখিয়েছেন, আরো আগেই ওনার (পল্লবী) নোবেল পাওয়া উচিত ছিল।’ কেউ কেউ তাদের বিয়ে নিয়ে সত্যিই উৎসাহী। কেউ আবার হেসে উড়িয়ে দিয়েছেন বিষয়টি।