দুইশ কেজির মাছ ভেবে তুলতে পারেনি, ডুবুরি এনে দেখলেন ৬শ গ্রাম

গোলাপগঞ্জের কুড়া নদীতে এক যুবকের বড়শিতে ধরা পড়া ৬শ গ্রামের ওজনের একটি গাগলা মাছ নিয়ে ল’ঙ্কাকান্ডের সৃষ্টি হয়েছে। রাতে সুুুুরুজ আলী নামের এক যুবকের বড়শিতে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের নগর গ্রামস্থ কুড়া নদীতে এ মাছটি ধরা পরে।

সারারাত চেষ্টা করেও তিনি মাছটি উঠাতে পারেননি। এরপর শনিবার সকালে বড়শিতে ২শ কেজির ওজনের মাছ ধরা পড়েছে বলে পুরো উপজেলায় খবর ছড়িয়ে পরলে আশপাশ এলাকার বিভিন্ন জায়গা থেকে কয়েক শতাধিক উৎসুক জনতা মাছটি দেখতে ভীড় করেন।

সারাদিনেও অনেক ডুবুরি এই মাছটি উঠাতে পারেনি।
পরে ভাদেশ্বর থেকে আসা এক ডুবুরি বিকেলে মাছটি তুলতে সক্ষম হলে দেখা যায় মাত্র ৬শ গ্রাম ওজনের একটি গাগলা মাছ।

যার বড়শিতে এই মাছটি ধরা পড়েছিল সেই সুরুজ আলী বলেন, আমি আসলেই লজ্জিত,কে বা কারা ২শ কেজি ওজনের মাছ ধরা পড়েছে বলে পুরো উপজেলায় ছড়িয়ে দেওয়ায় হাজারো মানুষকে কষ্ট করতে হলো।

গতকাল থেকে আমি মাছটি তুলতে না পারায় অনেকে ধারণা করেছিল মাছটি অনেক বড় হবে। পাঠক আমরা বেশির ভাগ সংবাদ প্রাপ্ত বিশ্বস্ত সুত্র থেকে সংগ্রহ করে যাচাই বাচাই করে পাবলিশ করে থাকি। আমরা সব সময় চেষ্টা করি সত্য সংবাদ তুলে ধরতে।

পথ চলার ৫ বছরের মধ্যে ৯৯.৯৯ ভাগ সংবাদ সঠিক ও তথ্য সমৃদ্ধ ছিল। আপনাদের মতামত পরামর্শ আমাদের পথ চলা। ভাল লাগলে সাথে থাকুন অন্যদের বলুন, ভাল না লাগলে আমাদের বলুন।

আরো পড়ুনঃ এল বিশার মাগুর মাছের ঝাক, ব্যাপক ভাইরাল ভিডিও মাছ একটি শীতল রক্তবিশিষ্ট মেরুদণ্ডী প্রাণী যার শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য ফুলকা রয়েছে, চলাচলের জন্য যুগ্ম অথবা অযুগ্ম পাখনা রয়েছে,এদের দেহে সচরাচর আঁইশ থাকে, সাধারণত এরা জলকেই বসবাসের মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ করে থাকে।

সাধারণত এদের দেহের বহির্ভাগ আঁশ দ্বারা আচ্ছাদিত; তবে আঁশ নেই এমন মাছের সংখ্যাও একেবারে কম নয়। এরা সমুদ্রের লোনা জল এবং স্বাদু জলের খাল, বিল, হাওর, বাওর, নদী, হ্রদ, পুকুর, ডোবায় বাস করে।

পাহাড়ি ঝর্ণা থেকে শুরু করে মহাসাগরের গহীন অতল স্থানে, অর্থাৎ যেখানেই জল রয়েছে সেখানেই মাছের অস্তিত্ব দেখতে পাওয়া যায়।

পৃথিবীর প্রায় সর্বত্র মাছ মানুষের খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। মাছ মানবদেহে অন্যতম আমিষ যোগানদাতা। অনেক স্থানেই মাছ চাষ করা হয়ে থাকে।

এ ছাড়াও বিনোদন হিসাবে ছিপ/বড়শি দিয়ে মাছ ধরা আবার মাছকে অ্যাকুয়ারিয়ামে প্রদর্শন করা হয়ে থাকে। কয়েকটি প্রাণী মাছ না হলেও এগুলো মাছ হিসাবে প্রচলিত।

প্রজাতির অনেকগুলিই খাওয়ার জন্য খামারি বা মাছ ধরা হয়। অ্যাকোয়ারিয়াম শখের মধ্যে অনেক ছোট প্রজাতি, বিশেষত Corydoras প্রজাতিটি গুরুত্বপূর্ণ।

অনেকগুলি ক্যাটফিশ নিশাচর , তবে অন্যরা (অনেক অচেনিপেটেরিডে ) ক্রেপাসকুলার বা ডিউরানাল ( উদাহরণস্বরূপ, বেশিরভাগ লরিচারিইডি বা কালিচিথাইডি )।

এগুলি মিঠা পানির পরিবেশে পাওয়া যায় যদিও বেশিরভাগ অগভীর, প্রবাহিত জলের বাসিন্দা। কমপক্ষে আটটি পরিবারের প্রতিনিধি হিপোজেন (লাইভ আন্ডারগ্রাউন্ড) তিনটি পরিবার নিয়ে ট্রোগলব্যাটিক (আবাসিক গুহাগুলি)।