রাতে গায়েবি কান্নার শব্দ, খুঁজতে গিয়ে অবাক পুলিশ

রাজধানীর মিরপুর দুই নম্বরে দীর্ঘদিন ধরে গায়ে’বি কা’ন্নার শ’ব্দ শুনতে পাচ্ছিল এলাকাবাসী। কিন্তু কান্নার উৎ’স খুঁজে পাচ্ছিল না কেউ। ঘটনাটি নিয়ে কেউ মুখ না খোলায় সম্প্রতি স্থানীয় একজন

বাংলাদেশ পুলিশের ফেসবুক পেইজে এই তথ্য জানান। পরে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে মিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুর রহমানকে গা’য়েবি কান্নার রহ’স্য উদঘা’ট’নের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

অবশেষে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে রহ’স্য উদঘা’টন করে পুলিশ। পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স) মো. সোহেল রানা ঘটনার বিষয়ে জানান, মিরপুর থেকে ম্যা’সে’জে জানানো হয়,

একটি নির্মাণাধীন আবাসিক ভবনে রাতের বেলা প্রায়ই গা’য়েবি কা’ন্না’র শব্দ আসে। কয়েকদিন চে’ষ্টা করেও কেউ কান্নার উৎস জানতে পারেননি। পরে এক ব্যক্তি বিষয়টি ‘বাংলাদেশ পুলিশ’এর ফেসবুক পেজে ম্যাসেঞ্জারে জানান।

পরে বিষয়টি মিরপুর থানার ওসির নেতৃত্বে সাদা পোশাকের একটি দল ওই নির্মাণাধীন ভবনে যায়। প্রথম দিন কিছু না পেয়ে পরপর দুদিন রাতের বেলায় দলটি ওই এলাকায় ট’হ’ল দেয়।

পরে তারা দেখতে পান, নির্মাণাধীন হাউজিং কমপ্লেক্সের ভেতরে প’রিত্য’ক্ত একটি ভবনে এক ব্যক্তি তার স্ত্রী ও শিশুদের নিয়ে থাকেন। প্রতিদিন রাতে তিনি তার সন্তানদের হাত-পা বেঁ’ধে ‘মা’র’পি’ট’ করতেন।

এছাড়াও স্ত্রীকেও নানা সময় ‘নি”র্যা’ত”ন করতেন। সেই চিৎকার শো’না যেত দূর থেকে। পরে স্ত্রী ও শিশুদের অ’ভিযো’গের ভিত্তিতে ওই নি”র্যা”ত’ন’কা’রী ব্য”ক্তিকে আ”ট’ক করা হয়।

মিরপুর থানা পুলিশ জানায়, ওই ব্যক্তির নাম মো. জাহাঙ্গীর। তিনি দুই শিশু ও স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি ভোলা জেলার চরফ্যাশনে। ঢাকায় থাকার জায়গা না পেয়ে গোপনেই পরি’ত্য’ক্ত এই নির্মাণাধীন ভবনে থাকতেন। জাহাঙ্গীরের বি’রু’দ্ধে একটি মা’ম’লা হয়েছে।

সূত্রঃ bd24live